May 20, 2024, 12:39 am
শিরোনাম
মগের মুল্লুকে পরিণত হয়েছে দেশটা: বিএনপি মহাসচিব ‘চ্যারিটি ফান্ড কেইউ’ এর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু পবিপ্রবিতে বিশ্বকবির ১৬৩ তম জন্মজয়ন্তী উদযাপন একজন আইনজীবীর প্রথম দায়িত্ব হচ্ছে মানুষের অধিকার রক্ষার জন্য কাজ করা : অ্যাটর্নি জেনারেল জাবিতে ছাত্রলীগ সম্পাদকের বান্ধবীকে নিয়োগ দিতে তোড়জোড় যুক্তিতর্ক দেখে সবাই ভাবতো ভালো প্রতিষ্ঠান থেকে এসেছি : শাহ মনজুরুল হক ইবিতে মুজিব মুর‍্যালে এ্যাটর্নি জেনারেলের শ্রদ্ধা নিবেদন  বাংলাদেশ পুলিশ পেশাদারিত্বের সাথে জনগণের নিরাপত্তা দিয়ে আসছে : আইজিপি ইবি অধ্যাপক ড. ইকবাল হোসাইনের আত্মার মাগফিরাতে দোয়া মাহফিল কানাডার বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রসংসদের সভাপতি হলেন জাবির সাবেক শিক্ষার্থী 

গুপ্তধনের আঁড়ালে থাকা জীবন দর্শন ‘দ্য আলকেমিস্ট’

অনুপ চক্রবর্তী
  • প্রকাশের সময় : Tuesday, May 18, 2021,
  • 1 বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

আপনার জীবনের লক্ষ্য কি আপনি জানেন? এই লক্ষ্য কী আপনার মন ঠিক করেছে, নাকি প্রভাবিত? আপনি কি আপনার লক্ষ্যের দিকেই আছেন? এসব প্রশ্ন খুব কমই আমরা নিজেকে করে থাকি৷ দ্য আলকেমিস্ট পড়লে এই প্রশ্নগুলোকে আর জটিল মনে হবে না। খুব সরল মনে হবে। বইটি পড়তে পড়তেই পাওলো কোয়েলহো’র সেই স্বর্ণকারিগর আপনার সামনে পরশ পাথর নিয়ে এসে ছুঁইয়ে দেবেন আর আপনি জেনে যাবেন আপনার জীবনের লক্ষ্য আসলেই কী!

গল্পের নায়ক একজন রাখাল বালক; নাম সান্তিয়াগো। স্পেনের একটা গ্রামে তার বাস। সান্তিয়াগোর বাবা যদিও চেয়েছিলেন তাকে যাজক বানাতে। কিন্তু সে চেয়েছিলো পৃথিবী ঘুরতে, যাযাবর অভিযাত্রী হতে। তাই ভেঁড়া চরিয়ে চরিয়ে বিভিন্ন জায়গায় যাওয়ার জন্যই রাখাল হয়েছে সে৷ ভ্রমণের পিপাসা মেটাবার জন্য তার সামর্থ্যে, এই পশু চারণকারী হওয়া ছাড়া আর কোনো উপায় ছিলো না। তাই সে রাখাল হয়েই তার ইচ্ছেকে প্রাধান্য দিয়েছে। মেষ চরায়, বিক্রি করে, বই পড়ে আর রাত হলে বই মাথার নিচে দিয়ে ঘুমিয়ে যায়। একটি শেষ হলে বদলে নিয়ে আসে আরেকটা।

কাহিনীতে মোড় আসে সান্তিয়াগোর দেখা একটা স্বপ্নকে কেন্দ্র করে৷ জিপসী বুড়ি স্বপ্নের ব্যাখ্যা করে ভবিষ্যৎবাণী করেন, মিসরে গেলে সে গুপ্তধন পাবে পিরামিডের কাছে। মাঝখানে সালেমের রাজা নামের আরেকজন অলৌকিক চরিত্র এসে হাজির হয়৷ সেও তাকে একই কথা বলেন। বোঝান মিসরই তার জীবনের লক্ষ্য। সান্তিয়াগো তার সকল মেষ বিক্রি করে দেয়, প্রেমিকা মনে করা এক মালিকের মেয়ে, তার চেনা চেনা রাস্তা-ঘাট, মাঠ সব ছেড়ে রওনা দেয় আফ্রিকার দিকে।

পথে সে তার সর্বস্ব হারিয়ে ফেলে। বাধ্য হয়ে অনেক বছর চাকরি করে এক স্ফটিকের দোকানে। হাল ছেড়ে ফিরে না এসে ঘুরে দাঁড়ায়। টাকা জমলে আবার ফিরে আসবে স্পেনে ভেবেছিলো এমন। কিন্তু তার আর ফেরা হয় না। কাফেলার সাথে যোগ দিয়ে পৌছে যায় মরুভূমির মাঝে এক উদ্যানে৷ পরিচয় ঘটে আলকেমিস্টের সাথে। প্রেম হয় মরুভূমির এক মেয়ে ফাতিমার সাথে। শিখে যায় মনকে প্রশ্ন করে সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার উপায়। এরপর অনেক বাধাবিপত্তি পেরিয়ে সে মিসরে পৌছায় পিরামিডের কাছে এবং সবশেষে তার গুপ্তধন অর্জনও করে।

কেমন সহজ কাহিনীর একটা বই মনে হচ্ছে তাই না? কিন্তু বাস্তবে কিন্তু তা নয়। রূপকধর্মী এই বইটি জীবন সম্পর্কে এমন সব দর্শন আমাদের শেখায়, যা মানুষের ভাবনার জগতে আলোড়ন আনে। নিজের কমফোর্ট জোন ভেঙে লক্ষ্যের দিকে ছুটে যেতে অনুপ্রাণিত করে।

বইটি আমাদের ইচ্ছে শক্তিকে বাড়িয়ে দিতে সহায়তা করে। বার বার আমাদের বলছে- মানুষ যখন তার লক্ষ্য নির্ধারণ করা ফেলে তখন সে তা অর্জনের দিকে অর্ধেক এগিয়ে যায়। আর কেউ যখন কোনো কিছু প্রবলভাবে অর্জনের স্বপ্ন দেখে তখন সমগ্র প্রকৃতি তাকে সেটা পাইয়ে দিয়ে সহায়তা করে।

লেখকঃ কবি ও সমাজকর্মী।

 

অনুপ/মাসুম

 

 

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© প্রকাশকঃ ট্রাস্ট মিডিয়া হাউস © 2020-2023