May 20, 2024, 6:09 pm
শিরোনাম
মগের মুল্লুকে পরিণত হয়েছে দেশটা: বিএনপি মহাসচিব ‘চ্যারিটি ফান্ড কেইউ’ এর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু পবিপ্রবিতে বিশ্বকবির ১৬৩ তম জন্মজয়ন্তী উদযাপন একজন আইনজীবীর প্রথম দায়িত্ব হচ্ছে মানুষের অধিকার রক্ষার জন্য কাজ করা : অ্যাটর্নি জেনারেল জাবিতে ছাত্রলীগ সম্পাদকের বান্ধবীকে নিয়োগ দিতে তোড়জোড় যুক্তিতর্ক দেখে সবাই ভাবতো ভালো প্রতিষ্ঠান থেকে এসেছি : শাহ মনজুরুল হক ইবিতে মুজিব মুর‍্যালে এ্যাটর্নি জেনারেলের শ্রদ্ধা নিবেদন  বাংলাদেশ পুলিশ পেশাদারিত্বের সাথে জনগণের নিরাপত্তা দিয়ে আসছে : আইজিপি ইবি অধ্যাপক ড. ইকবাল হোসাইনের আত্মার মাগফিরাতে দোয়া মাহফিল কানাডার বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রসংসদের সভাপতি হলেন জাবির সাবেক শিক্ষার্থী 

সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের হাবিপ্রবি মজার ইস্কুলের ঈদ সামগ্রী বিতরণ

হাবিপ্রবি প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : Wednesday, April 12, 2023,
  • 1 বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

মাহে রমজান এবং আসন্ন ঈদ উপলক্ষে এইচএসটিউ মজার ইস্কুলের আয়োজনে সুবিধাবঞ্চিত দুঃস্থ অসহায় দুই শতাধিক শিক্ষার্থীদের মাঝে পবিত্র ঈদ উল ফিতর উপলক্ষে ঈদ সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে।

বুধবার (১২ এপ্রিল) বিকেল ৪ টা ৩০ মিনিট থেকে গরীব ও সুবিধাবঞ্চিত শিক্ষার্থীদের মাঝে হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশ্ববিদ্যালয় স্কুল মাঠে এই ঈদ সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এম. কামরুজ্জামান প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে উক্ত অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন হাবিপ্রবি মজার ইস্কুলের প্রধান উপদেষ্টা প্রফেসর ড. বিধান চন্দ্র হালদার। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. মো. সাইফুর রহমান, প্রক্টর প্রফেসর ড. মামুনুর রশিদ, ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা বিভাগের পরিচালক অধ্যাপক ড. ইমরান পারভেজ, সহকারী প্রক্টর ড. মো. ইয়াসিন প্রধান, ও ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা বিভাগের সহকারী পরিচালক মো. মিজানুর রহমান, হাবিপ্রবি মজার ইস্কুলের সভাপতি মেহেদী হাসান ও সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভাইস চ্যান্সেলর বলেন, “একজন শিশুকে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার যে প্রয়াস বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা দেখাচ্ছেন, তা অবশ্যই প্রশংসার দাবিদার। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা নিজেরা ভালো মানুষ হয়ে দেশ গড়ার কাজে আত্মনিয়োগ করবে, এবং তাদের দেখাদেখি সুবিধাবঞ্চিত এসব শিশুরা একদিন দেশের হয়ে সুনাম বয়ে নিয়ে আসবে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বলেছিলেন, বাবারা, তোমরা ভালো মানুষ হও। আমি আশাবাদ ব্যক্ত করবো, তোমরা ভালো মানুষ হবে। মজার ইস্কুল শিশুদের মানবিক মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে পারবে।”

ঈদ সামগ্রী বিতরণ শেষে মজার ইস্কুলের সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় স্কুল মাঠেই ইফতার অনুষ্ঠিত হয়। এতে মজার ইস্কুলের সাবেক, বর্তমান, এবং অন্যান্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, সুবিধাবঞ্চিত অসহায় দরিদ্র পথ শিশুদের, শিক্ষার মতো মৌলিক অধিকার বাস্তবায়নে এবং সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে নিজেদের অবস্থান পরিবর্তন এবং ছোট্ট মাথায় বুনে রাখা স্বপ্নকে লালনের উদ্দেশ্যে ২০১৫ সালের ৯ নভেম্বর, “নিরক্ষর মুক্ত দেশ গড়া, মজার ছলে শেখাবো মোরা” এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ঝাঁক তরুণ, স্বপ্নচারীর হাত ধরে গড়ে উঠে হাবিপ্রবি মজার ইস্কুল।

বিশ্ববিদ্যালয় অঞ্চলের আশেপাশের এলাকাগুলোতে সুবিধাবঞ্চিত হতদরিদ্র শিক্ষার্থী ও পথ শিশু, যারা শিক্ষার অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে, তাদের নানা ভাবে বুঝিয়ে মজার ইস্কুলে নিয়ে আসা হয়। হাবিপ্রবির অভ্যন্তরে অবস্থিত হাবিপ্রবি বিশ্ববিদ্যালয় প্রাথমিক স্কুলে অস্থায়ী ভাবে তাদের ক্লাস কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। স্কুল ছুটির পর বিকেল থেকে শুরু হয় মজার ইস্কুলের ক্লাস।

মজার ইস্কুলের শিক্ষকদের দৃঢ় প্রত্যয়, শিক্ষার্থীদের জন্যে ভালোবাসা, মজার ছলে পড়ানো, ইত্যাদি বিভিন্ন কারণে কোনো শিক্ষার্থী একবার ক্লাসে আসলে আর ফেরত যেতে চায়না। শিক্ষকদের বন্ধুত্বসুলভ আচরণ টেনে আনে শিক্ষার্থীদের। এই স্কুলে আসা শিক্ষার্থীরা বিনামূল্যে বই, খাতা, কলম, রাবার, পেন্সিল সহ যাবতীয় সুবিধা পায়। প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের বুদ্ধিদীপ্ত ও মানসিক পরিশুদ্ধির জন্যে বিভিন্ন খেলাধুলা ও সুস্থ সাংস্কৃতিক চর্চার আয়োজন করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদ ও বিভাগের শিক্ষার্থীদের নিরলস পরিশ্রম ও পকেট খরচের টাকায় চলে এই সংগঠন। কেউ হয়তো সন্ধ্যার নাস্তার টাকা বাঁচিয়ে শিক্ষার্থীদের বই, খাতা কেনায় সেই টাকা ব্যয় করেন। কেউ কেউ এটাকে আত্মশুদ্ধির জায়গা হিসেবেও কল্পনা করেন। বর্তমানে এই স্কুলের শিক্ষক আছেন ষাটেরও অধিক। শিশু শ্রেনী থেকে শুরু করে দশম শ্রেনী পর্যন্ত পড়ানো হয় শিক্ষার্থীদের। শিক্ষকরা পর্যায়ক্রমে সপ্তাহে ছয়দিন ক্লাস নেন এখানে। প্রতিদিন বিকেল ৪ টা ৩০ মিনিট থেকে ৬ টা পর্যন্ত চলে পথশিশুদের ক্লাস কার্যক্রম।

এমন মহতী উদ্যোগের বিষয়ে সংগঠনটির সভাপতি মো. মেহেদী হাসান বলেন, আমাদের এই উদ্যোগের মাধ্যমে শিশুদের মুখে যে হাসি ফুটেছে তা অমূল্য। এই হাসিমাখা মুখ দেখার জন্যই আজকের এই আয়োজন। ঈদের আনন্দ ছড়িয়ে যাক সবার মাঝে এই প্রত্যাশা রইলো।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© প্রকাশকঃ ট্রাস্ট মিডিয়া হাউস © 2020-2023