May 24, 2024, 12:51 am
শিরোনাম
গিয়াস ও সামির নেতৃত্বে ইবি’র কক্সবাজার জেলা ছাত্রকল্যাণ সমিতি পবিপ্রবিতে অফিসার্স এসোসিয়েশনের মতবিনিময় সভা পবিপ্রবিতে ‘পাওয়ারিং দ্যা ফিউচার’ শীর্ষক সেমিনার ইবিতে কক্সবাজার জেলা ছাত্রকল্যাণ সমিতির পুনর্মিলনী ও নবীন বরণ অনুষ্ঠিত বেরোবি ফিল্ম এন্ড আর্ট সোসাইটির নেতৃত্বে সোয়েব ও অর্ণব ইবি রোভার স্কাউটের বার্ষিক তাবুঁবাস ও দীক্ষা অনুষ্ঠান শুরু সেভেন স্টার বাস কাউন্টারের কর্মীদের হামলার শিকার পবিপ্রবির শিক্ষার্থীরা, আহত ৫ শিক্ষার্থীদের জন্য সাংবাদিকতায় বুনিয়াদি প্রশিক্ষণের আয়োজন করলো নোবিপ্রবিসাস ইবি ছাত্রলীগ সহ-সম্পাদকের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি জাবিতে কুরআনের অনুবাদ পাঠ প্রতিযোগিতার পুরুষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত

ববিতে এখন ডেঙ্গু আতঙ্ক

মোহাম্মদ উল্লহ,ববি প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : Saturday, March 18, 2023,
  • 0 বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) ক্যাম্পাসে দিন দিন বেড়ে চলছে মশার প্রকোপ। বিকেলের পরপরই আবাসিক হল ও দোকানপাটে মশার উপদ্রব দেখা যাচ্ছে। কোথাও স্থির হয়ে বসার জো নেই বলেও অভিযোগ শিক্ষার্থীদের।

তারা বলছেন, রাতের অবস্থা তো আরও ভয়াবহ, দিনের বেলায়ও কোথাও শান্তিমত বসা যায় না৷ শিক্ষার্থীরা দিন-রাতে অতিষ্ঠ হয়ে যাচ্ছে মশার কামড়ে। এ অবস্থার প্রতিকার চান তারা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বলছেন, হলের কক্ষগুলোতে মশারি বা কয়েল ব্যবহার ছাড়া এক মিনিটও অবস্থান করা সম্ভব হচ্ছে না। একাডেমিক কক্ষগুলোতেও মশার উৎপাত মাত্রা ছাড়িয়েছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে দুয়েকবার ফগার মেশিন ব্যবহার করা ছাড়া দৃশ্যমান কোনো পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি।

এদিকে গত ১৬ই ফেব্রুয়ারি ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের ২০২১-২২ সেশনের মো. রাকিবুল হাসান নামের এক শিক্ষার্থী মৃত্যুবরণ করেছেন। এ নিয়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে সৃষ্টি হয়েছে ডেঙ্গু রোগের আতঙ্ক ৷

বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু হলের এক আবাসিক শিক্ষার্থী বলেন, বর্তমান ডেঙ্গু মহামারীতে রূপান্তরিত হয়ে চলেছে। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রায় দুই হাজার আবাসিক শিক্ষার্থী রয়েছে। আমাদের ক্যাম্পাস এ যথাযথ নিষ্কাশন ব্যবস্থা নেই এবং বিভিন্ন জায়গায় ঝোপঝাড় রয়েছে, এগুলো নিয়ে প্রশাসন আপাতত উদ্যোগ নিচ্ছে না পরিষ্কার করার জন্য। আমরা বারবার বলা সত্ত্বেও প্রশাসন মশক নিধন এর বিষয়ে কোনো উদ্যোগ নিচ্ছেন না। এটার আমরা আসল সমাধান চাই। ক্যাম্পাসে সম্প্রীতি ডাস্টবিন স্থাপন করলেও যেসব জায়গায় মশক জন্ম হয় সেই জায়গাগুলোতে তারা উদাসীন। সেই জায়গা গুলোকে তারা পরিষ্কার করেনি। আসলে আমাদের যে চারটি হল আছে এগুলোর যে বর্জ্য আছে সেই বর্জ্যগুলো যথাযথ নিষ্কাশন করা হচ্ছে না। এগুলো ক্যাম্পাস এর বিভিন্ন জায়গায় ফেলা হচ্ছে। যেগুলো থেকে মশক উৎপাদিত হয়। এগুলোর যথাযথ উদ্যোগ নিয়ে সঠিকভাবে পরিষ্কার করা উচিত।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শেরে বাংলা হলের মহিউদ্দিন নামের এক শিক্ষার্থী বলেন, বর্তমানে যে ডেঙ্গুর প্রকোপ বৃদ্ধি পাচ্ছে এতে হলের আবাসিক শিক্ষার্থীরা আতঙ্কে রয়েছে। এমতাবস্থায় হল কর্তৃপক্ষের নিকট দাবি এই যে, তারা যেন মশক নিধন কর্মসূচি ও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করে।

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবন ও প্রশাসনিক ভবনের আশপাশ, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাফেটারিয়া, ভোলাগেট সংলগ্ন ডোবায় খোলা জায়গায় ফেলা হচ্ছে ময়লা। এছাড়া আবাসিক হল সংলগ্ন যে পুকুর বা ডোবা রয়েছে সেখানে অপরিচ্ছন্ন ঝোপঝাড়ে মশা বিস্তার করছে। এছাড়াও শেখ হাসিনা হলের আশপাশে ঝোঁপঝাড় ও ড্রেনেজ সিস্টেম খারাপের কারণে মশার প্রকোপ বেড়েছে।

শেরে বাংলা হল, বঙ্গবন্ধু হল, শেখ হাসিনা হলের আশপাশে ঝোঁপঝাড় ও ড্রেনেজ সিস্টেম খারাপের কারণে মশার প্রকোপ বেড়েছে ৷ এছাড়াও লাইব্রেরি, মসজিদ এবং ক্যাম্পাসে বিভিন্ন স্থানে দিনের বেলায় মশার প্রকোপ কম থাকলেও সন্ধ্যা নামতে বেড়ে যায় মশার উপদ্রব।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. মো. খোরশেদ আলম জানান, আমরা সিটিকর্পোরেশনের সহায়তায় মশানাশক ঔষধ দেয় ঝোপঝাড় পরিষ্কারের কাজ শেষ হলেই আবার ঔষধ দেয়া হবে।

কোষাধ্যাক্ষ অধ্যাপক ড. মো. বদরুজ্জামান ভূঁইয়া কাঞ্চন জানান, অল্পকিছুদিনের মধ্যই এই বিষয়ে ইতিবাচক পরিবর্তন দেখতে পাবেন। আমাদের ঝোপঝাড়ের পরিষ্কারের কাজ চলমান।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. ছাদেকুল আরেফিন বলেন, আমারা ইতিমধ্যেই পরিষ্কার অভিযান পরিচালনা করছি, কিছুদিন পরই সিটিকর্পোরেশনের সহায়তায় মশা নাশক ঔষধ দেওয়া হবে।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© প্রকাশকঃ ট্রাস্ট মিডিয়া হাউস © 2020-2023