May 21, 2024, 2:43 pm
শিরোনাম
জাবিতে কুরআনের অনুবাদ পাঠ প্রতিযোগিতার পুরুষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত মগের মুল্লুকে পরিণত হয়েছে দেশটা: বিএনপি মহাসচিব ‘চ্যারিটি ফান্ড কেইউ’ এর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু পবিপ্রবিতে বিশ্বকবির ১৬৩ তম জন্মজয়ন্তী উদযাপন একজন আইনজীবীর প্রথম দায়িত্ব হচ্ছে মানুষের অধিকার রক্ষার জন্য কাজ করা : অ্যাটর্নি জেনারেল জাবিতে ছাত্রলীগ সম্পাদকের বান্ধবীকে নিয়োগ দিতে তোড়জোড় যুক্তিতর্ক দেখে সবাই ভাবতো ভালো প্রতিষ্ঠান থেকে এসেছি : শাহ মনজুরুল হক ইবিতে মুজিব মুর‍্যালে এ্যাটর্নি জেনারেলের শ্রদ্ধা নিবেদন  বাংলাদেশ পুলিশ পেশাদারিত্বের সাথে জনগণের নিরাপত্তা দিয়ে আসছে : আইজিপি ইবি অধ্যাপক ড. ইকবাল হোসাইনের আত্মার মাগফিরাতে দোয়া মাহফিল

র‍্যাগিংমুক্ত ক্যাম্পাস আমাদেরও প্রত্যাশা

আসিব হাসান
  • প্রকাশের সময় : Saturday, March 11, 2023,
  • 3 বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরিক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে পাবলিকিয়ান তকমা গায়ে লাগানোর স্বপ্ন যখন বাস্তবে বাঁধভাঙা উল্লাসে রূপ নেয় তখনই সদ্য চান্সপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীর মনের গভীরে অজানা এক ভীতি কাজ করে যা “র‍্যাগিং” হিসাবে পরিচিত।

বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়েন অথচ র‍্যাগিং সম্পর্কে ধারণা নেই এমন শিক্ষার্থী হয়তো খুঁজে পাওয়া যাবেনা,মূলত নবীন শিক্ষার্থীদের বিশ্ববিদ্যালয়ের কালচার ও ম্যানার শেখানোর নামে চলে র‍্যাগিং,হল বা মেস কেন্দ্রিক র‍্যাগিংকে গেস্টরুম কালচার হিসাবেও অভিহিত করা হয়।

সাধারণত বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন ভর্তি হওয়া ব্যাচের সাথে সিনিয়ররা বিশ্ববিদ্যালয়ের কালচার জানানো এবং পরিচিত হওয়ার জন্য একত্রিত হয়, এই পরিচয় পর্বেই নবীন শিক্ষার্থীদের ছোটখাটো ভুলের কথা তুলে ধরে শুরু হয় ভয়াবহ র‍্যাগিং,এক পায়ে দাঁড় করিয়ে রাখা,মাঠের মধ্যে দৌড় করানো,কাঠি দিয়ে পুরো ক্যাম্পাস মাপা,পানিতে নেমে খালি হাতে মাছ ধরা,একচামচ করে পানি এনে ইট ভেজানো,গাছের পাতা গোনা,ক্যাম্পাসের সব গাছকে সালাম দেওয়া,সিনিয়র আপুকে প্রপোজ করা, অস্বাভাবিক অঙ্গভঙ্গি সহ ধরনের র‍্যাগিং চলতে থাকে,পরিবার পরিজন ছেড়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে আসা শিক্ষার্থীদের জন্য যা এক অসহায় পরিস্থিতি। এরপর যদি কোনো ভুলের কারনে কোনো সিনিয়র রুমে ডাকে তাহলে পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ হয়ে ওঠে।রাতভর চলতে থাকে একের পর এক অসহনীয় কার্যক্রম,এক পর্যায়ে নতুন ভর্তিহওয়া শিক্ষার্থীর কাছে বিশ্ববিদ্যালয় হয়ে ওঠে আতঙ্কের নাম।

র‍্যাগিং এর ভয়াবহতা এতটাই মারাত্মক হয় যে অনেক শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাসায় চলে যায় আর পড়বেনা বলে,এছাড়াও র‍্যাগিংয়ের বিষয় গোপন রাখতেও দেখানো হয় নানারকম ভয়ভীতি।

র‍্যাগিং এর শিকার শিক্ষার্থী বিভিন্ন ধরনের মানসিক সমস্যার সম্মুখীন হতে থাকে যার ফলে মানসিক স্বাস্থ্যের অবনতি, স্বাভাবিক শিক্ষা-কার্যক্রম ব্যাবহত হওয়া সহ বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় শিক্ষার্থীদের।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন র‍্যাগিং এর বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে থাকলেও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে এই র‍্যাগিং কালচার এখনো পুরোপুরি বন্ধ হয়নি।
আশা করি দ্রুতই বিশ্ববিদ্যালয় সমূহ এই ভয়ানক কালচার থেকে পুরোপুরি মুক্ত হতে পারবে।

শিক্ষার্থী,বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© প্রকাশকঃ ট্রাস্ট মিডিয়া হাউস © 2020-2023