May 24, 2024, 1:48 am
শিরোনাম
গিয়াস ও সামির নেতৃত্বে ইবি’র কক্সবাজার জেলা ছাত্রকল্যাণ সমিতি পবিপ্রবিতে অফিসার্স এসোসিয়েশনের মতবিনিময় সভা পবিপ্রবিতে ‘পাওয়ারিং দ্যা ফিউচার’ শীর্ষক সেমিনার ইবিতে কক্সবাজার জেলা ছাত্রকল্যাণ সমিতির পুনর্মিলনী ও নবীন বরণ অনুষ্ঠিত বেরোবি ফিল্ম এন্ড আর্ট সোসাইটির নেতৃত্বে সোয়েব ও অর্ণব ইবি রোভার স্কাউটের বার্ষিক তাবুঁবাস ও দীক্ষা অনুষ্ঠান শুরু সেভেন স্টার বাস কাউন্টারের কর্মীদের হামলার শিকার পবিপ্রবির শিক্ষার্থীরা, আহত ৫ শিক্ষার্থীদের জন্য সাংবাদিকতায় বুনিয়াদি প্রশিক্ষণের আয়োজন করলো নোবিপ্রবিসাস ইবি ছাত্রলীগ সহ-সম্পাদকের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি জাবিতে কুরআনের অনুবাদ পাঠ প্রতিযোগিতার পুরুষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত

নন-ক্যাডারের নতুন নীতিমালা বাতিলের দাবিতে বরিশালে মানববন্ধন

আরিফ- ববি প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : Thursday, October 20, 2022,
  • 0 বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি) কর্তৃক বিসিএস নন-ক্যাডার নিয়োগে নতুন নীতিমালা বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন করেছেন ৪০তম বিসিএস পরীক্ষায় অপেক্ষমান নন-ক্যাডার প্রার্থীরা।এতে অংশ নেয় বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থী, অন্যান্য চাকরিপ্রার্থীরা ও বেকার ছাত্রসমাজ। মানববন্ধনে চাকুরী প্রার্থীরা নতুন নিয়মকে অযৌক্তিক বলে পিএসসিকে কড়া সমালোচনা করে ছয় দফা দাবি জানিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (২০ অক্টোবর) অশ্বিনীকুমার টাউন হলের সামনের সড়কে সকাল ১১টায় এ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।

মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা বলেন, নন-ক্যাডার নিয়োগ বিধিমালা অনুযায়ী প্রতিটি বিসিএসে চূড়ান্ত ফল প্রকাশের পর প্রার্থীদের কাছ থেকে আবেদন নেওয়া হতো এবং পরের বিসিএসের চূড়ান্ত ফল প্রকাশের আগ পর্যন্ত বিভিন্ন মন্ত্রণালয় থেকে যত চাহিদা আসে, সেই অনুযায়ী নিয়োগ দেওয়া হতো। কিন্তু ৪০ তম বিসিএসের নন-ক্যাডার নিয়োগ দেওয়ার আগেই ৪১,৪৩ ও ৪৪তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তির তারিখ অনুযায়ী শূন্য পদ আলাদা করার জন্য মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছে পিএসসি। এমনকি বিজ্ঞপ্তি না হলেও ৪৫ তম বিসিএসের নন-ক্যাডারের পদের চাহিদা চাওয়া হয়েছে। পিএসসির এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়িত হলে ৪০ তম এবং পরবর্তী ৪১,৪৩ ও ৪৪ তম বিসিএসের নন-ক্যাডার প্রার্থীদের ওপর বিপর্যয় নেমে আসবে। এই চার বিসিএসের ৩০-৩৫ হাজার প্রার্থীকে তখন শূন্য হাতে ফিরতে হবে।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী মো. লিয়ন শেখ বলেন, বিসিএস শিক্ষার্থীরা তিনটি ধাপ অতিক্রম করে।তারপরে একটি পর্যায়ে যায়।যোগ্যতার প্রমাণ দেওয়ার পরে যদি নন-ক্যাডার থেকে চাকুরী না দিতে পারে,তাহলে হতাশা দিন দিন বেড়ে যাবে।বর্তমান শিক্ষার্থীদের মাঝে হতাশা ও আত্মহত্যার প্রবণতা লক্ষ করা গেছে। কিন্তু যে নীতিমালা হাতে নিয়েছে তাতে শিক্ষার্থীদের হতাশা আরো বেড়ে যাবে।আমরা চাই,দেশের মঙ্গলে,শিক্ষার্থীদের যোগ্যতার ভিত্তিতে নন-ক্যাডারের নতুন নীতিমালা প্রনয়ন না করা হোক।

সরকারি ব্রজমোহন (বিএম) কলেজের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী আসিফ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ বলেন, এই নতুন নীতিমালার ফলে আরো বেশি দেশে বেকার সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে।তাই, মন্ত্রণালয়ের অধীনে নয়,আগের নিয়মে পিএসসির মাধ্যমে নন-ক্যাডারের নিয়োগ প্রক্রিয়া হোক।তাতে আমাদের যোগ্যতার প্রমাণ ও হতাশা দুর হবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিক্ষার্থী বলেন , পিএসসি’র এমন সিদ্ধান্ত আমাদের জন্য অমানবিক। এমনটা আমরা কখনোই প্রত্যাশা করি না। বর্তমান সরকারের সময় বিসিএসকে বেকারবান্ধব করে মানুষের আস্থার জায়গায় নিয়ে আসা হয়েছে। আমরা আশা করছি খুব শীঘ্রই পিএসসি এমন সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসবে।

মানববন্ধনে ছয়দফা দাবি উথাপন করা হয়। ছয় দফা দাবিগুলো হলো, বিজ্ঞপ্তির পরে ৪০-৪৪তম বিসিএস পর্যন্ত বিজ্ঞপ্তির তারিখ অনুযায়ী নন-ক্যাডার পদ বিভাজনের মাধ্যমে পদসংখ্যা নির্ধারণের বেকার বিরুদ্ধে ও অযৌক্তিক সিদ্ধান্ত বাতিল, ৪০তম বিসিএস নন-ক্যাডারের পদ ৩৬, ৩৭ ও ৩৮তম বিসিএসকে দেওয়ার অযৌক্তিক সিদ্ধান্ত অবিলম্বে বাতিল, করোনা মহামারিতে ক্ষতিগ্রস্ত ইতিহাসের দীর্ঘকালীন ৪০তম বিসিএসে উত্তীর্ণ নন-ক্যাডার অপেক্ষমাণ তালিকায় থাকা প্রার্থীদের মধ্য থেকে সর্বোচ্চসংখ্যক প্রার্থীকে নন-ক্যাডারে নিয়োগের সুপারিশ করা, যে প্রক্রিয়া অনুসরণ করে পিএসসি ৩৪-৩৮তম বিসিএস নন-ক্যাডার তালিকা প্রকাশ করেছে, সেই একই প্রক্রিয়ায় বর্তমানে উদ্ভূত সমস্যার সমাধান, ‘যার যা প্রাপ্য, তাকে তা-ই দেওয়া হবে’ পিএসসির এমন বক্তব্যের সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা ও বেকারত্ব সৃষ্টির অপপ্রয়াস বন্ধ করে বেকার বান্ধব নীতি গ্রহণ ও বাস্তবায়ন এবং গত এক যুগে পিএসসি যে স্বচ্ছ, নির্ভরযোগ্য ও বেকারবান্ধব প্রতিষ্ঠান ছিল, সেই ধারা অব্যাহত রাখা।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© প্রকাশকঃ ট্রাস্ট মিডিয়া হাউস © 2020-2023