May 20, 2024, 6:29 pm
শিরোনাম
মগের মুল্লুকে পরিণত হয়েছে দেশটা: বিএনপি মহাসচিব ‘চ্যারিটি ফান্ড কেইউ’ এর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু পবিপ্রবিতে বিশ্বকবির ১৬৩ তম জন্মজয়ন্তী উদযাপন একজন আইনজীবীর প্রথম দায়িত্ব হচ্ছে মানুষের অধিকার রক্ষার জন্য কাজ করা : অ্যাটর্নি জেনারেল জাবিতে ছাত্রলীগ সম্পাদকের বান্ধবীকে নিয়োগ দিতে তোড়জোড় যুক্তিতর্ক দেখে সবাই ভাবতো ভালো প্রতিষ্ঠান থেকে এসেছি : শাহ মনজুরুল হক ইবিতে মুজিব মুর‍্যালে এ্যাটর্নি জেনারেলের শ্রদ্ধা নিবেদন  বাংলাদেশ পুলিশ পেশাদারিত্বের সাথে জনগণের নিরাপত্তা দিয়ে আসছে : আইজিপি ইবি অধ্যাপক ড. ইকবাল হোসাইনের আত্মার মাগফিরাতে দোয়া মাহফিল কানাডার বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রসংসদের সভাপতি হলেন জাবির সাবেক শিক্ষার্থী 

সশরীরে ক্লাস চায় রাবি শিক্ষার্থীরা

রাবি প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : Saturday, January 22, 2022,
  • 0 বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

দেশব্যাপী করোনার সংক্রমণ দিন দিন বেড়েই চলেছে। মন্ত্রীপরিষদ বিভাগের প্রজ্ঞাপনের প্রেক্ষিতে অন্যান্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের মত রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ও (রাবি) ৬ ফ্রেরুয়ারি পর্যন্ত সশরীরে ক্লাস বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।তবে, প্রতিটি বিভাগ বা ইনস্টিটিউট নিজ নিজ শিক্ষার্থীদের সাথে যোগাযোগের মাধ্যমে অনলাইনে শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে পারবে। এদিকে প্রায় দেড় বছর অনলাইনে ক্লাস করার অভিজ্ঞতার প্রেক্ষিতে অধিকাংশ শিক্ষার্থী স্বাস্থ্যবিধি মেনে ও বুস্টার ডোজ নিয়ে সশরীরে ক্লাস করার পক্ষে মতামত জানিয়েছেন। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বলছেন সংকটকালে সরকারী সিদ্ধান্ত সর্বজনগ্রাহ্য হওয়া দরকার।

অনলাইন ক্লাসের বিষয়ে মতামত জানতে চাইলে আইন বিভাগের শিক্ষার্থী কানিজ আক্তার বলেন,’অনলাইন ক্লাস কখনোই সশরীরে ক্লাসের বিকল্প হতে পারেনা। সশরীরে ক্লাসে মনোযোগ থাকে, মন মানসিকতা ফুরফুরে থাকে, ক্লাসগুলো বেশ আনন্দদায়ক লাগে। কিন্তু অনলাইন ক্লাসে মনোযোগ আসেনা, শিক্ষার্থীরা ঠিকভাবে ক্লাস করতে পারেনা ফলে তারা হতাশায় ভোগে। শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি অভিভাবকরাও সন্তানের ভবিষ্যৎ নিয়ে দুশ্চিন্তায় থাকে। যেকোনো জায়গায় থেকেই ক্লাসে জয়েন করা যাবে ভেবে অনেক অভিভাবক মেয়েদের বিয়ে দিয়ে দেন, বিয়ের পর পড়ালেখা আর আগেরমত হয়না। সর্বোপরি, অনলাইন ক্লাসের ফলে অনেক শিক্ষার্থী ঝরে যাচ্ছে, যা আমাদের শিক্ষাব্যবস্থায় অপূরনীয় ক্ষতি।’

তিনি আরো বলেন,’ অনেকের ভালো এন্ড্রয়েড ফোন না থাকাসহ অধিকাংশ শিক্ষার্থীর বাড়ি গ্রামে হওয়ায় ইন্টারনেটের গতির সমস্যার কারণে ক্লাসে জয়েন করতে না পারার সমস্যা তো আছেই। এছাড়া ক্লাসে জয়েন করে অন্য কিছু করে বেড়ানো, ক্লাসে কম উপস্থিতি ও ক্লাসের কথা বলে অধিকাংশ সময় অনলাইনে থাকাসহ বিভিন্ন ধরনের শারীরিক ও মানসিক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয় অনলাইন ক্লাসে। তাই আমি স্বাস্থ্যবিধি মেনে সশরীরে ক্লাস হওয়া উচিত বলে মনে করি। ‘

সমাজকর্ম বিভাগের শিক্ষার্থী শামিম রেজা বলেন, ‘স্বশরীরে ক্লাসে স্যারদের সাথে ইন্টারঅ্যাকশনটা ভালোমতো হয়। কিন্তু অনলাইন ক্লাসের ক্ষেত্রে ক্লাসগুলো দীর্ঘ হয়ে যায়, মনোযোগ আসেনা এবং ক্লাস চলাকালীনই অন্য কিছু করতে থাকি। এছাড়া অনলাইনে ক্লাস হলে সাধারণত বাড়িতে থাকা হয়, আর তখন সময়গুলো আজবাজে কাজেই নষ্ট হয়ে যায়। তাছাড়া, অনেকের ভালো ডিভাইস না থাকা ও নেটওয়ার্কের সমস্যা তে আছেই। এগুলোর বাইরেও, অনলাইন ক্লাসের ক্ষেত্রে ক্লাসগুলো শিক্ষকরা তাদের পছন্দমত সময়ে নেয়, যেমন আসরের পরে বা মাগরিবের পরে, এটাও অনেকের জন্য বিরক্তের বা ঝামেলার কারন হয়ে দাড়ায়। আরো ইনকোর্স পরীক্ষাগুলো অনলাইনে নেওয়া সম্ভব হয়না, যার জন্য শিক্ষার্থীদের শেখার ক্ষেত্রে একটা ফাক থেকে যায়।’

ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্টে শিক্ষার্থী মেহেদী হাসান হিমেল বলেন, ‘আমাদের প্রকৌশল অনুষদের শিক্ষার্থীদের জন্য অনলাইনে কোনোভাবে ক্লাস হলেও ল্যাবের ক্লাসগুলো করা সম্ভব হয়না। বেশিরভাগ শিক্ষার্থীই বর্তমানে করোনার টিকা নিয়েছেন। তাই আমি সকল বিধিনিষেধ মেনে এবং প্রয়োজনে বুস্টার ডোজ নিয়ে হলেও সশরীরে ক্লাসে অংশ নিতে চাই।’

অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী সিদ্দিকুর রহমান বলেন ,’গতবারের মত দীর্ঘদিন শিক্ষা বন্ধ থাকলে শিক্ষার্থীদের মানসিক সমস্যাও বেড়ে যেতে পারে এবং অনেক শিক্ষার্থী ঝরে যেতে পারে। আর বর্তমানে করোনার মৃত্যু হার বা স্বাস্থ্যঝুকিও কম। তাই, বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে আমি কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ সবকিছুই খোলা রাখা উচিত বলে মনে করি।’

অনলাইন ক্লাসের বিষয়ে জানতে চাইলে পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. সালেহ হাসান নকিব বলেন,’ পরিস্থিতি অনুকূলে থাকলে সশরীরে ক্লাস হওয়াটাই বাঞ্চনীয়। সশরীরে ক্লাসের বিকল্প হিসাবে অনলাইনে ক্লাস এখনো সেভাবে প্রতিষ্ঠা পায়নি। আমি চাই, পরিস্থিতির উন্নতি হলে দ্রততম সময়ের মধ্যে যেন আবার সশরীরে ক্লাসে যাওয়া যায়, সেদিকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন নজর দিবে।’

স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষার সুযোগ থাকলে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে সশরীরে ক্লাসে কি সমস্যা জানতে চাইলে তিনি আরো বলেন,’সরকারি প্রজ্ঞাপনে কিছুটা নমনীয়তা থাকলেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সেটার সুযোগ নেয়নি। দেশের একটা “বড় বিশ্ববিদ্যালয়” যে সিদ্ধান্ত নেয়, বাকি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোও সাধারণত সেরকম সিদ্ধান্তই নেয়। স্বায়ত্তশাসনের কথা বলা হলেও বাস্তবে সেটার প্রতিফলন দেখা যায়না। তবে পরীক্ষা চালু থাকবে এটা একটা ইতিবাচক দিক।’

অনলাইন ক্লাস সশরীরে ক্লাসের বিকল্প হতে পারে কিনা জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. সুলতানুল ইসলাম বলেন,’কোনো কিছুই একটা জিনিসের বিকল্প হতে পারে না পরিপূরক হতে পারে। সংকটকালে আমরা একটা পন্থা অবলম্বন করছি,এটা ধীরে ধীরে পূর্ণাঙ্গ রুপ লাভ করবে। কোনো ক্লাস না হওয়ার থেকে অনলাইনে ক্লাস হওয়াটা ভালো।’

স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষার সুযোগ থাকলে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে সশরীরে ক্লাসে কি সমস্যা জানতে চাইলে তিনি বলেন,’ পরীক্ষা একসাথে এক বা দুইটি বর্ষের হচ্ছে। সেক্ষেত্রে দূরত্ব বজায় রেখে বসানো যাচ্ছে কিন্তু সব বর্ষের ক্লাস চালু থাকলে দূরত্ব বজায় রাখা যাবেনা। পড়াশোনায় সাময়িক ক্ষতি হলেও সংক্রমনের হার যদি কমে আসে,তাহলে আমরাই সুস্থ থাকবো। আর সেশন জট বা শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি কমানোর জন্য পরীক্ষাগুলো চালু রাখা হয়েছে।’

অর্ধেক করে শিক্ষার্থী নিয়ে সশরীরে ক্লাস চালু রাখা যেতো কিনা জানতে চাইলে উপ-উপাচার্য বলেন,’সরকারি প্রজ্ঞাপনে আমাদের “অনুরুপ” সিদ্ধান্ত নিতে বলা হয়েছিলো। আর সেই অনুরুপ সিদ্ধান্তটা হলো সাময়িক সময়ের জন্য সশরীরে না নিয়ে অনলাইনে ক্লাস নেওয়া। তাছাড়া, আমরা সভা করে অধিকাংশের মতমতের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

সরকারি প্রজ্ঞাপনে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর জন্য নমনীয়তা থাকলেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সেটার সুযোগ নেয়নি কেনো জানতে চাইলে তিনি আরো বলেন,’ রাবিসহ দেশের চারটি বিশ্ববিদ্যালয় স্বায়ত্তশাসিত। কিন্তু জাতীয় সংকটের সময়ে বা যেকোনো বিষয়ে সরকারী সিদ্ধান্ত সর্বজনগ্রাহ্য হওয়া দরকার। আমরা আশা করি, সরকার বিশ্ববিদ্যালয়কে হুকুম করবে না। গতকালকের প্রজ্ঞাপনেও সেই বিষয়টা লক্ষণীয়। সরকার সম্মানের সাথেই বলেছে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো “অনুরুপ” সিদ্ধান্ত গ্রহন করবে। এখন আমরা যদি অন্য সিদ্ধান্ত নেই, তাহলে একটা বিশৃঙ্খল অবস্থার সৃষ্টি হবে। সংকটকালীন সময়ে আমরা কোনো বিশৃঙ্খলা চাই না বরং একতা চাই।’

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© প্রকাশকঃ ট্রাস্ট মিডিয়া হাউস © 2020-2023