May 21, 2024, 1:51 pm
শিরোনাম
জাবিতে কুরআনের অনুবাদ পাঠ প্রতিযোগিতার পুরুষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত মগের মুল্লুকে পরিণত হয়েছে দেশটা: বিএনপি মহাসচিব ‘চ্যারিটি ফান্ড কেইউ’ এর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু পবিপ্রবিতে বিশ্বকবির ১৬৩ তম জন্মজয়ন্তী উদযাপন একজন আইনজীবীর প্রথম দায়িত্ব হচ্ছে মানুষের অধিকার রক্ষার জন্য কাজ করা : অ্যাটর্নি জেনারেল জাবিতে ছাত্রলীগ সম্পাদকের বান্ধবীকে নিয়োগ দিতে তোড়জোড় যুক্তিতর্ক দেখে সবাই ভাবতো ভালো প্রতিষ্ঠান থেকে এসেছি : শাহ মনজুরুল হক ইবিতে মুজিব মুর‍্যালে এ্যাটর্নি জেনারেলের শ্রদ্ধা নিবেদন  বাংলাদেশ পুলিশ পেশাদারিত্বের সাথে জনগণের নিরাপত্তা দিয়ে আসছে : আইজিপি ইবি অধ্যাপক ড. ইকবাল হোসাইনের আত্মার মাগফিরাতে দোয়া মাহফিল

একটি সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র কখনোই অন্যান্য রাষ্ট্রের সাথে তাল মিলাতে পারেনা-ঢাবি উপাচার্য

মোঃমাহফুজুর রহমান, বাঙলা কলেজ প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : Tuesday, August 3, 2021,
  • 0 বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

সরকারি বাঙলা কলেজের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের উদ্যোগে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে ‘বঙ্গবন্ধুর ধর্মনিরপেক্ষ মতবাদ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ‘শীর্ষক এক ভার্চুয়াল সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার (২রা আগস্ট) রাত ৮.৩০ মিনিটে ভার্চুয়াল এ সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।
ভার্চুয়াল সেমিনারে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ড.আফরোজা বেগমের সভাপতিত্বে ‘বঙ্গবন্ধুর ধর্মনিরপেক্ষ মতবাদ ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি’ নিয়ে মুখ্য আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর ড.আখতারুজ্জামান ১৫ আগষ্টে নিহত বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে তিনি বলেন জাতীয়তাবাদ, ধর্মনিরপেক্ষ, সমাজতন্ত্র,গণতন্ত্র হঠাৎ করেই আবির্ভাব ঘটেনি তার মধ্যে অসাম্প্রদায়িকতা৪০ এর দশকে মজ্জাগত ধারণা বঙ্গবন্ধুর শৈশব থেকেই ছিল অসাম্প্রদায়িকতা।ছাত্র নেতা পরবর্তীতে যুবনেতা হিসেবে ভাষা আন্দোলনকে কেন্দ্র করে এটা শুধু বাংলাদেশেই নয়,সারা বিশ্বে স্বীকৃতি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হয়।এ সংগ্রামে তিনি সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন।সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র কখনোই অন্যান্য রাষ্ট্রের সাথে তাল মিলাতে পারেনা।দাঙ্গা, অসন্তোষ, বৈষম্য সৃষ্টি হয়।পাকিস্তান ছিল সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র। যার কারনে বিভিন্ন ধর্মের মানুষের মধ্যে রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক বৈষম্য ছিল বিদ্যমান।এই বৈষম্য দূরীকরণের লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু অসাম্প্রদায়িক দেশ গড়ার স্বপ্ন দেখেন,যার ফলে হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ, খৃষ্টান সকল ধর্মের মানুষ হাতে হাত মিলিয়ে কাঁধে কাঁধ রেখে ঐক্যবদ্ধ হয়ে তার ডাকে সাড়া দিয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণের মাধ্যমে একটি অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্রের সৃষ্টি হয়। যা এখনও আমাদের মূল চালিকা শক্তি।একমাত্র ধর্মনিরপেক্ষতা করনের মাধ্যমেই তিনি সমস্ত মানুষকে একত্রিত করতে পেরেছিলেন।এটাই ছিল তার জীবনের বড় সফলতা।তিনি যেমনি দেশ ও জাতির জন্য সফলতা বয়ে এনেছেন তার কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার ধারাবাহিকতা বজায় রেখেছেন। এছাড়াও তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে ধারণ করে শিক্ষা দেওয়ার জন্য প্রতিটি বিভাগ,প্রতিটি ইনস্টিটিউটের প্রতি আহবান জানান।

প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, সরকারি বাঙলা কলেজের সুযোগ্য অধ্যক্ষ প্রফেসর ড.ফেরদৌসী খান। তিনি সকল শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন,বঙ্গবন্ধুর ৫৫ বছর বয়স জীবনে, দেশ ও জাতির কল্যানের জন্য বিভিন্ন সময়ে ৩০৫৩ দিন কারাবরণ করেছেন।অসাম্প্রদায়িকতা ও মানবতাবোধ থেকেই দেশ গড়েছেন।তিনি শৈশব থেকেই সাম্প্রদায়িকতার ভয়াবহতা দেখেছেন।গভীর আত্নত্যাগের ছয় দফা দাবির মাধ্যমে দেশ গড়েছেন। কলকাতা ইসলামিয়া কলেজে পড়ার সময়ে সেখানে যে দাঙ্গা শুরু হয়েছিল, বঙ্গবন্ধু হিন্দু ও মুসলিমদের মধ্যে সম্প্রীতি বজায় রাখার চেষ্টা করছেন।তিনি একাই বিভিন্ন আন্দোলনের মাধ্যমে অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র গড়ে তুলেছেন। তিনি ইসলামিক ফাউন্ডেসন গঠন করেছিলেন এবং তাবলীগ জামাতের জন্য জায়গা প্রদান করেছিলেন।পশ্চিমা বিশ্বের ধর্মনিরপেক্ষতা আর বাংলাদেশের ধর্মনিরপেক্ষতাবাদ এক নয়। শুধু বাংলাদেশের জন্য নয় দক্ষিণ এশিয়ার দুর্ভাগ্য যে তিনি অসাম্প্রদায়িক দেশ গড়ার জন্য বেশি সময় পাননি।কিছু কুচক্রী মানুষের হাতে তিনি সহ তার পরিবার নিহত হওয়ার পর। রাষ্ট্র সাম্প্রদায়িকতায় রুপ নেয়। দীর্ঘ ২১ বছর পর তার কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার স্বপ্ন পূরণের লক্ষ্যে আলোর প্রদীপ জ্বালিয়েছেন। নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সরকারি বাঙলা কলেজের উপাধ্যক্ষ প্রফেসর জাহাঙ্গীর হোসেন, তিনি বলেন ধর্ম যার যার রাষ্ট্র সবার তেমনি বঙ্গবন্ধুও সবার।বঙ্গবন্ধু সবাইকে ভালোবাসার মূলভিত্তি হিসেবে ২৩ বছর লড়াই করেছেন তার মধ্যে ১৩ বছর কারাবরণ করেছেন।বঙ্গবন্ধু সোনার বাংলা গড়তে চেয়েছিলেন, যেখানে ধর্ম এবং রাষ্ট্র থাকবে আলাদা। ধর্মনিরপেক্ষতাবাদ মানে ধর্মহীনতা নয়।বঙ্গবন্ধু কন্যা একটি আরবী বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করেছেনএবং মাদরাসা শিক্ষাকে আধুনিকায়ন করেছেন।যার ফলে জাতি পুর্নগঠনে সার্থকতা বহন করে।
ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক সামছুন্নাহারের সঞ্চালনায়
অসাম্প্রদায়িকতা ও মানবতাবোধে বঙ্গবন্ধুর বর্ণাঢ্য জীবন নিয়ে
প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন উক্ত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড.সিকান্দার আলী ভুইঁয়া।
এছাড়াও উক্ত সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধানগণ ও শিক্ষকবৃন্দ।

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© প্রকাশকঃ ট্রাস্ট মিডিয়া হাউস © 2020-2023